Breaking news

পিরোজপুরে ৬৩ হাজার ৭৫৮ হেক্টরে জমিতে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ
পিরোজপুরে ৬৩ হাজার ৭৫৮ হেক্টরে জমিতে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ

পিরোজপুরে ৬৩ হাজার ৭৫৮ হেক্টরে জমিতে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ

জেলায় চলতি আমন চাষ মৌসুমে ২ হাজার ৫৮ হেক্টরে অতিরিক্ত আমন চাষের লক্ষমাত্রা নিয়ে মোট লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬৩ হাজার ৭৫৮ হেক্টর। চাল উৎপাদনের লক্ষমাত্রা ২ হাজার ৫৮ হেক্টরে ২ হাজার ৩শত মেট্রিক টন নির্ধারণ করে মোট নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লক্ষ ১৫ হাজার ৩২০ মেট্রিকটন।
হাইব্রিড, উফসী, স্থানীয় এবং বোনা আমন মিলিয়ে সদর উপজেলায় ৯ হাজার ১৮৯ হেক্টরে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১৬ হাজার ১৩০ মেট্রিকটন নির্ধারণ করা হয়েছে।

ইন্দুরকানীতে একই জাতের ধান ৫ হাজার ৩৫২ হেক্টরে ৯ হাজার ৬৪৬ মেট্রিকটন, কাউখালীতে ৪ হাজার ৪২২ হেক্টরে ৭ হাজার ৭০৭ মেট্রিকটন, নেছারাবাদে ৬ হাজার ২১০ হেক্টরে ১০ হাজার ৩৭২ মেট্রিকটন, নাজিরপুরে ৬ হাজার ১৭৭ হেক্টরে ১২ হাজার ৭৯২ মেট্রিকটন, ভান্ডারিয়ায় ১০ হাজার ২শত হেক্টরে ১৭ হাজার ৩৮২ মেট্রিকটন এবং মঠবাড়িয়ায় ২০ হাজার ১৫০ হেক্টরে ৩৮ হাজার ৮৯১ মেট্রিকটন চাল।

চাষিরা এখন বীজ বপন করে চারা তৈরিতে ব্যস্ত সময় অতিক্রম করছেন। এদিকে আমন চাষে চাষিদের উদ্ভুদ্ধ করার লক্ষ্যে পিরোজপুরে চলতি আমন ধান চাষ মৌসুমে ২ হাজার ২শত জন চাষিকে প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। এ প্রণোদনা দেয়ার জন্য সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয় ১৩ লক্ষ ৪৭ হাজার ৫শত টাকা বরাদ্দ দিয়েছে।

এ বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে চাষিদের প্রত্যেককে ৫ কেজি উফসী আমন বীজ, ১০ কেজি ডিএপি সার এবং ১০ কেজি এমওপি সার ক্রয় করে দেয়া হয়েছে। সদর উপজেলায় ৩২০ জন, ইন্দুরকানীতে ১৯০ জন, কাউখালীতে ১৭০ জন, নেছারাবাদে ৩০০ জন, নাজিরপুরে ২৯০ জন, ভান্ডারিয়ায় ৩৩০ জন এবং মঠবাড়িয়ায় ৬০০ জন চাষি এ প্রণোদনার সুবিধা পেয়েছে।

কৃষিসম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পিরোজপুরের উপ-পরিচালকের কার্যালয় এর উপ-সহকারী কৃষি অফিসার অরুন রায় জানান এ প্রণোদনার সার, বীজ চাষিদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণের ফলে তাদের আমন ধান চাষে আগ্রহ বাড়ছে। ফলে আমন চালের উৎপাদন এ জেলায় ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।


Published: 2022-07-18 08:00 am   |   View: 1170   |  
Copyright © 2017 , Design & Developed By maa-it.com



up-arrow